For Advertisement

রাশিয়ায় টিকা উৎপাদন শুরু, প্রস্তুত ভারত

১৫ আগস্ট ২০২০, ৯:৩৬:৫০

বৈশ্বিক মহামারী কোভিড-১৯ এর টিকা উৎপাদন শুরু করেছে রাশিয়া। একথা জানিয়েছে দেশটির স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়। মন্ত্রণালয়ের এক বিবৃতিতে টিকা উৎপাদন শুরুর বিষয়টি নিশ্চিত করা হয়েছে বলে শনিবার জানায় বিবিসি।

অন্যদিকে টিকা উৎপাদনের জন্য প্রস্তুত ভারত। বিজ্ঞানীদের কাছ থেকে ‘সবুজ সংকেত’ পেলে বিপুল পরিমাণে কোভিড-১৯ টিকা উৎপাদনে তার দেশ প্রস্তুত আছে বলে দাবি করেছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী।

রুশ স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের বিবৃতিতে দাবি করা হয়েছে, উৎপাদন শুরু হওয়ায় দুই সপ্তাহের মধ্যে টিকা প্রয়োগ শুরু করা যাবে।

স্নায়ুযুদ্ধ যুগে মহাকাশ জয়ে সাবেক সোভিয়েত ইউনিয়নের কৃত্রিম উপগ্রহ স্পুৎনিক এর নামে রাশিয়া তাদের কোভিড-১৯ টিকার নাম রেখেছে। বিশ্বের প্রথম দেশ হিসেবে গত সপ্তাহে রাশিয়া কোভিড-১৯ এর একটি টিকা ব্যবহারের অনুমোদন দেয়। মস্কোর ‘গামালিয়া ইনস্টিটিউট’র বানানো ওই টিকা মানব দেহে পরীক্ষামূলক ব্যবহারের পর দুই মাসও পেরোয়নি। তৃতীয় বা চূড়ান্ত ধাপের পরীক্ষাও হয়নি। তার আগেই দেশটির সরকার গণহারে টিকা ব্যবহারের অনুমোদন দেওয়া নিয়ে বিশ্বজুড়ে স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন।

তড়িঘড়ি করে কোভিড-১৯ টিকার অনুমোদন দেয়ায় এবং টিকা সম্পর্কে পর্যাপ্ত তথ্য-উপাত্ত না থাকায় খোদ রাশিয়ার বেশিরভাগ চিকিৎসক এই টিকা নিতে অস্বস্তি বোধ করছেন বলে এক জরিপে উঠে এসেছে। রাশিয়ার তিন হাজারেরও বেশি চিকিৎসক ও স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞর ওপর এ জরিপ চালানো হয়।

টিকাটি তৃতীয় ধাপের চূড়ান্ত পরীক্ষা-নিরীক্ষা শেষ না হওয়ায় এই অস্বস্তি, বলেছেন বেশিরভাগ চিকিৎসক।

তবে রুশ স্বাস্থ্যমন্ত্রী মিখাইল মুরশেঙ্কোর দাবি, তাদের টিকা ‘অত্যন্ত কার্যকর এবং নিরাপদ’। ২০টির মতো দেশ এরইমধ্যে রাশিয়ার টিকা নিতে আগ্রহ প্রকাশ করেছে বলেও জানিয়েছে মস্কো।

অন্যদিকে শনিবার স্বাধীনতা দিবসের ভাষণে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী টিকা উৎপাদনের পাশপাশি যত দ্রুত সম্ভব তা দেশের প্রতিটি নাগরিকের কাছে পৌঁছে দিতে প্রস্তুত আছেন বলেও জানান।

দিল্লির ‘রেড ফোর্টে’ স্বাধীনতা দিবস উদযাপন অনুষ্ঠানে মোদী বলেন, একটি বা দুটি নয়, ‍কোভিড-১৯ এর অন্তত তিনটি টিকা ভারতে পরীক্ষা করা হচ্ছে। শুধু টিকা উৎপাদনই নয়, বরং কীভাবে দ্রুততার সঙ্গে তা দেশের প্রতিটি মানুষের কাছে পৌঁছে দেওয়া যায় তার পরিকল্পনাও করা হয়ে গেছে।

করোনাভাইরাস মহামারীর মধ্যে এবার ভারতের স্বাধীনতা দিবসের আয়োজন তেমন জাকজমক পূর্ণ ছিল না। কুচকাওয়াজে অংশ নেয়া সেনাদের কোয়ারেন্টিনে থাকতে হয়েছে। অনুষ্ঠানে মাত্র চার হাজার অতিথি আমন্ত্রিত ছিলেন। প্রতিটি চেয়ার ছয় ফুট দূরে দূরে ছিল।

মোদী এদিন ১৩০ কোটি রুপির স্বাস্থ্য প্রকল্প ‘ন্যাশনাল ডিজিটাল হেল্থ মিশন’ উদ্বোধন করেন।

করোনাভাইরাস মহামারী আটকাতে বিশ্বের অনেক দেশ ও ইন্সটিটিউট টিকা আবিষ্কারের চেষ্টা করছে। তারা টিকা পরীক্ষার নানা ধাপে রয়েছে।

For Advertisement

Unauthorized use of news, image, information, etc published by Protichhobi | Bangla News World Wide is punishable by copyright law. Appropriate legal steps will be taken by the management against any person or body that infringes those laws.

Comments: